কুয়াকাটায় সৈকতে ফের গড়ে উঠেছে অবৈধ স্থাপনা

কুয়াকাটায় সৈকতে ফের গড়ে উঠেছে অবৈধ স্থাপনা

এইচ,এম,হুমায়ুনকবির, কলাপাড়া প্রতিনিধি ঃ কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে ফের গড়ে তোলা হচ্ছে অবৈধ স্থাপনা। পৌর প্রশাসন ও সি বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটিকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে পর্যটক দর্শনার্থীদের চলাচলের পথ দখল করে বেরি বাঁধের বাইরে তোলা হচ্ছে নতুন স্থাপনা।

বীচ সংলগ্ন জিরো পয়েন্টের পশ্চিম দিকে শুটকি মার্কেটের পিছনে সরদার মার্কেট সংলগ্ন টিনের বেড়া দিয়ে রাতের আধারে করা হচ্ছে এ স্থাপনা। অন্য দিকে এসব অপসারনের দৃশ্যমান কোনো কার্যকর পদক্ষেপ নেই। উল্টে সৈকতে স্থাপনা তোলা আর অপসারন নিয়ে চলছে বিরাট অর্থবানিজ্য। স্থানীয় প্রভাবশালীদের সহায়তায় আলাউদ্দিন নামে এক কেয়ার টেকারের তত্বাবধানে দীর্ঘ দিন ধরে চলছে এ নির্মান কাজ।

জানাযায়, পুকুর ভরাট করে নির্মিতব্য সংশ্লিস্ট স্থাপনার জায়গায় আদালতের চলমান মামলার নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, ইতিপূর্বে পানি উন্নয়ন বোর্ড বেরি বাঁধের পূর্ব দিকের সকল স্থাপনা উচ্ছেদ করলেও পশ্চিম দিকের কোন স্থাপনা উচ্ছেদ না করার সুযোগ নিয়ে একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট নতুন স্থাপনা তুলে হাতিয়ে নিচ্ছে অর্থ। ফলে যত্রতত্র দোকানপাট নির্মানের ফলে পর্যটকদের চলাচলের পথ বন্দ হচ্ছে। আর সৌন্দর্য হারাচ্ছে বিশ্বের বিরল সমুদ্র সৈকত কুয়াকাটা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয়রা জানায়, জমির মালিক হিরু মিয়া স্থানীয় প্রভাবশালী একটি সিন্ডিকেটের সদস্য কেয়ার টেকার আলাউদ্দিনের সহায়তায় ছয় মাসের ভাড়া অগ্রিম নিয়ে দোকান বরাদ্দ দিচ্ছে।

এ বিষয়ে জমির মালিক দাবীদার এসএম সাজিদুল ইসলাম হিরুর সাথে মুঠো ফোনে কথা হলে জানান, আদালতের রায় নিয়েই স্থাপনা তোলা হচ্ছে। কলাপাড়া সহকারী কমিশনার (ভূমি) খন্দকার রবিউল ইসলাম জানান, কুয়াকাটায় বেরি বাঁধের বাইরে কোন স্থাপনা নির্মান করা যাবেনা। যদি কেউ নির্মানের চেস্টা করে তবে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এ-ব্যাপারে কুয়াকাটা পৌর মেয়র আবদুল বারেক মোল্লা জানান, জজকোর্টের রায়ের বলে তারা স্থাপনা নির্মান-করছে।