রানীশংকৈল প্রেস ক্লাবের ফেইসবুক-এ প্রকাশিত এনজিও কর্তৃক দুঃস্থদের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ শিরোনামের সংবাদটির তথ্য সঠিক নয় ।

রানীশংকৈল প্রেস ক্লাবের ফেইসবুক-এ প্রকাশিত এনজিও কর্তৃক দুঃস্থদের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ শিরোনামের সংবাদটির তথ্য সঠিক নয় ।

মো:মেহেদী হাসান, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: উপরোক্ত শিরোনামের ২৯ আগস্ট/১৭ প্রকাশিত সংবাদটি আমরা দেখেছি-যে অভিযোগের প্রেক্ষিতে সংবাদটি প্রকাশ করা হয়েছে ওই অভিযোগে এই সংবাদ শিরোনামটি সম্পূর্ণ তথ্য ভূল ও সঠিক নয়। যা একজন সংবাদ কর্মীর বা কোন কর্মীর অযোগ্যতা বলে মনে হয়। কারন এনজিও কর্তৃক ভিজিডি প্রকল্পের দুঃস্থদের সঞ্চয়কৃত অর্থ আত্মসাতের সুযোগ নেই। ওই সংবাদে আরও দৃস্টিগোচর হয় যে রাজিব সরকার এর অভিযোগের ভিত্তিতে জানা যায়,  মুনিরা বেগম ২লক্ষ ২৭ হাজার ২শত টাকা সঞ্চয় উত্তোলন করিয়াছে। সরকারি কোষাগারে ১ লক্ষ ৭৫ হাজার ৩ শত ৬০ টাকা জমা প্রদান করিয়াছে। বাকী ৫১ হাজার ৮ শত ৪০ টাকা সরকারি কোষাগাড়ে জমা না দিয়া নিজ হেফাজতে রাখিয়া দিয়াছেন। ওই সাংবাদে দেখা যায় মুনিরা বেগম সরকারী কোষাগারে জমাকৃত টাকার ১ লক্ষ ৭৫ হাজার ৩৬০ টাকা জমা দিয়েছেন। বাকী অবশিষ্ট ৫১ হাজার ৮ শত ৪০ টাকা সরকারী কোষাকারে জমা না করে নিজে আত্মসাৎ করেছেন। রাজিব সরকার অভিযোগ কার নিকট করেছিল ওসি রানীশংকৈল থানা, না চেয়ারম্যান লেহেম্বা ইউনিয়ন পরিষদ, না এবিএন,মোবারক আলী,জসিম,তোকহা গংদের নিকট?এ বিষয়টি’র সঠিক বিবৃতি না দিয়ে এই সংবাদ প্রকাশ সঠিক হয়নি। ইহা ছাড়া যাহার নিকট অভিযোগ করা হয়েছে তাদের বিবৃতি নেই।।ঘটনা স্থল লেহেম্বা ইউনিয়ন পরিষদ। রানীশংকৈল এই প্রতিষ্ঠানের কাহারো  কোন বিবৃতি নেই।উল্লেখ্য যে, রানীশংকৈল উপজেলায় এই সরকারি ভিজিডি প্রকল্পটি ৩৪ বছর ধরে পরিচালিত হয়ে আসছে। জানা যায়, কখনও ওই প্রকল্পে স্থানীয় স্টাফ নিয়োগ দেওয়া হয়নি। এবারেই প্রথম পল্লীবীর উন্নয়ন সংস্থা ওই প্রকল্পে সকল স্টাফকে রানীশংকৈল উপজেলার স্থানীয়দের নিয়োগ দিয়েছেন।ভবিষ্যতে সংবাদ প্রকাশের প্রয়োজনে ওই সংবাদ কর্মীদের আরও লেখাপড়া ও অভিজ্ঞতা অর্জনের প্রয়োজন আছে বলে বিজ্ঞ মহল মনে করেন।