মৃত্যুর মছিলিে জীবতিদরে খুঁজতে অভযিান অব্যাহত

মৃত্যুর মছিলিে জীবতিদরে খুঁজতে অভযিান অব্যাহত


ঢাকা অফিস: দক্ষণি আমরেকিার উত্তর-পশ্চমিরে দশে ইকুয়ডেরে শক্তশিালী ভূমকিম্পে নহিতরে সংখ্যা চারশ’ ছাড়য়িছে। প্রতি র্মুহূতইে বাড়ছে নহিতরে সংখ্যা। সবশষে যা বড়েে ৪১৩ জনে দাঁড়য়িছে।

এ অবস্থায় স্থানীয় সময় সোমবার (১৮ এপ্রলি) ধ্বংসস্তূত থকেে এক জীবতি ব্যক্তকিে উদ্ধার করা হয়ছে।ে বষিয়টি ভূমকিম্পে ধ্বংসাবশষেরে নচিে চাপাপড়াদরে আত্মীয়-স্বজনরে মধ্যে ‘আশার’ সঞ্চার করছে।

আর্ন্তজাতকি সংবাদমাধ্যম জানায়, ৩৫ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি ধ্বংসস্তূপরে নচি থকেে মোবাইলে ফোনরে মাধ্যমে তার মাকে জীবতি থাকার বষিয়টি জানান। এরপর উদ্ধারর্কমীরা র্পোতোভয়িো শহররে একটি হোটলেরে ধ্বংসস্তূপরে নচি থকেে তাকে উদ্ধার কর।ে
 
স্থানীয় সময় শনবিার (১৬ এপ্রলি) সন্ধ্যা ৬টা ৫৮ মনিটিে (বাংলাদশে সময় রোববার ভোর ৫টা ৫৮ মনিটি)ে ইকুয়ডেরে আঘাত হানা শক্তশিালী ওই ভূমকিম্পরে মাত্রা ছলি রখিটার স্কলেে ৭ দশমকি ৮। আহত হয়ছেনে অন্তত আড়াই হাজার মানুষ।

শক্তশিালী ওই ভূমকিম্পে সবচয়েে বশেি ক্ষতগ্রিস্ত হয়ছেে উপকূলীয় মানাবি প্রদশে। এখানইে এখন র্পযন্ত অন্তত দুশ’ মানুষ নহিতরে খবর জানয়িছেে আর্ন্তজাতকি সংবাদমাধ্যম।

বঁেচে যাওয়া এক ব্যক্তি বলনে, ‘যা ঘটছেে তা অত্যন্ত ভয়াবহ। ভবেছেলিাম এটাই বুঝি পৃথবিীর সমাপ্ত।ি কি করবো এখন সজেন্য অপক্ষো, অপক্ষো প্রসেডিন্টে কী বলনে’।

উদ্ধার অভযিানে দশ হাজার সনো সদস্য ও চার হাজার ছয়শ’ পুলশি র্কমর্কতা নয়িোগ দয়িছেে ইকুয়ডের র্কতৃপক্ষ। জীবতি ও মৃতদরে উদ্ধারে ‘র্সাচ ডগ’ দয়িে অনুসন্ধান চালানো হচ্ছ।ে

তবে নরিাপদ পানরি অভাব ও যোগাযোগ ব্যবস্থা ভঙেে পড়ায় ভূমকিম্পে ‘ধ্বংসযজ্ঞ’ পরণিত হওয়া দশেটতিে সমস্যা বাড়ছ।ে ইতোমধ্যে বভিন্নি দশে থকেে সাহায্য পোঁছছে।

এদকিে মঙ্গলবারও (১৯ এপ্রলি) দশেটতিে ৪.৯ মাত্রার ভূমকিম্প আঘাত হনেছেে বলে জানয়িছেে র্মাকনি ভূ-তাত্ত্বকি জরপি সংস্থা ইউএসজএিস।